৫টি সহজ মাধ্যমে ব্যায়াম ছাড়া দ্রুত ওজন কমানোর উপায় 2023

ওজন কমানোর উপায়

হ্যলো বন্ধুরা, আশা করি সবাই ভাল আছেন। আপনি যেহুতু আমাদের ওজন কমানোর উপায় আর্টিকেল এ কিল্ক করেছেন, তার মানে আপনি আপনার ওজন কমাতে চাচ্ছেন। চিন্তার কোনো কারন নেই। আজকের আটিকেল এ আমরা ব্যায়াম ছাড়াই ঘরে বসে অতি দ্রুত এবং অতি সহজে ওজন কমানোর উপায় এবং ডায়োট সম্পর্কে জানব। আপনি যদি আপনার ওজন এক সপ্তাহে পাঁচ কেজি কমানোর কথা ভাবে থাকেন, তাহলে চিন্তার কোনো কারণ নেই। আজেকে আমি আপনাদের একটি সমাধান দিব যার ফলে খুব সহজে আপনার ওজন এক সপ্তাহে পাঁচ কেজি কমাতে পারবেন। তবে আর কি, আর্টিকেলটি পরতে থাকুন ধীরে ধীরে বিষয় গুলো জানতে পারবেন।

আপনি এটাও নিশ্চিত থাকেন যে আজকের আটিকেল এ আমি আপনার ওজন কমানোর চূড়ান্ত গাইড দিব, বিশেষ করে যখন আমরা খাবারের দিক সম্পর্কে কথা বলছি ঔ দিকে বেশি খেয়াল রাখবেন । মনে রাখবেন,আপনার চেহারা এবং আপনার ওজন মূলত কিসের উপর নির্ভর করে৷ সাধারণত ব্যায়াম ও আপনাকে কিছুটা ওজন কমাতে সাহায্য করে ৷ তবে ব্যায়াম ছাড়াও ওজন কমানো সম্ভব। ব্যায়াম আপনার সামগ্রিক ওজন কমানোর জন্য প্রায় 20% থেকে 30% সহয়তা করবে ৷ তবে প্রাথমিকভাবে আপনার ওজন হ্রাস পাওয়া, আপনার খাদ্যের উপর নির্ভর করে ৷

ওজন কমানোর উপায় মৌলিক উপায়-

আমি আপনাদের বলব ওজন কমানোর আরেকটি টিপস ডায়েটিং সম্পর্কে, তবে তার আগে আপনাদের দুটি মৌলিক নিয়ম জানা দরকার। এক নম্বর, ডায়েট এবং ডায়েটিশিয়ানরা সব সময় অতীতের কথা বলে থাকে। অনেকজনই বলে থাকে, আমি ডায়েট করতে চাই। কিন্তু সত্যিকার অর্থে, ওজন কমানোর জন্য নির্দিষ্ট খাবার গ্রহন অনুসরণ নয়। ওজন কমানো হল খাদ্য বিজ্ঞান সম্পর্কে শেখা এবং আরও ভাল খাবারের সিদ্ধান্ত নেওয়া এবং এটাও বোঝা যে আপনি ২০০০ সালে বাস করছেন না। আপনি ইতিমধ্যে এমন এক সময়ে বড় হয়েছেন যখন জাঙ্ক ফুড, মিষ্টান্ন এবং সুস্বাদু খাবার আপনার চারপাশে রয়েছে। তাই আপনি ইচ্ছা করলে ও ডায়েট করে থাকতে পারবেন না।

See also  How To Become A Web Developer Complete Guideline 2023 | ওয়েব ডেভেলপার হওয়ার সহজ উপায়

আপনি যদি সফলভাবে ওজন কমাতে চান, তাহলে আপনাকে ওজন কমানোর বিষয় গুলো প্রতিনিয়ত পালন করতে হবে ৷ আপনি যদি দীর্ঘমেয়াদে ওজন কমাতে চান, মানে আপনার হাতে যদি অনেক টাইম থাকে ওজন কমানের জন্য তাহলে আপনি পরিমান মত খাবার গ্রহন করুন তাহলেই কাজ হবে । ওজন কমানোর একমাত্র চাবিকাঠি হল ক্যালোরি তত্ব ৷ কয়েকটি বিষয় মেনে চললে আপনি ন্যাচারাল ভাবেই আপনার ওজন কমাতে পারবেন। যেমন

  • পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান
  • রেগুলার হাঁটাহাটি করা
  • সময়মত খাবার গ্রহণ
  • অতিরিক্ত তেলযুক্ত খাবার না খাওয়া
  • খনিজ-সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া

আপনার খাবারের ক্যালোরিগুলি প্রতিদিন আপনার দেহের ক্যালোরির চেয়ে বেশি হওয়া দরকার, যতক্ষণ না আপনি আপনার ওজন কমাতে পারছেন । তাই বলি আপনার ওজন হল 60 কিলো, যতক্ষণ না আপনার ওজন স্কেলে 60 কিলোমার্কে পৌছে, ততদিন পর্যন্ত আপনাকে ক্রমাগত একটি ক্যালোরির রুটিন অনুসরণ করতে হবে।

স্বাস্থ্যকর ভাবে ওজন কমানোর উপায়

এখন, আপনার ওজন একটি স্কেল দ্বারা নির্ধারিত হচ্ছে। আপনি যদি এই রুটিন মেনে চলতে পারেন তাহলে আপনার ওজন অনেকটা কমে আসবে। আপনি খুব সহজে অনেকটা ওজন কমাতে সক্ষম হবেন, এবং আপনাকে বেশি ত্যাগ স্বীকার করতে হবে না। শুধু নিয়ম গুলো ভাল করে মেনে চলুন। প্রতি দু-তিন দিনে আপনি প্রায় 0.5 কেজি ওজন কমাতে পারবেন আশা করছি। এবং এটি ওজন কমানোর একটি খুব ভাল, স্বাস্থ্যকর উপায়। এভাবে আপনার স্কেল উপরে উঠতে থাকবে। আপনি যত উপরে উঠবেন ততই আপনি স্কেলের শেষ প্রান্তে পৌঁছাবেন, এবং একটি নিদিষ্ট সময় পর আপনার ওজন অনেক কমে যাবে।

ওজন কমানোর কিছু উপায়

ওজন কমানোর কিছুটা কঠিন মাধ্যম হল, কিছু নির্দিষ্ট ডায়েট প্ল্যান অনুসরণ করা। যেমন কেটো ডায়েট, ইফ ডায়েট, যা আপনার শরীরের জন্য কিছুটা কঠিন করে তুলবে। একটা সময় মনে হবে এটি আপনার পক্ষ থেকে বলিদান। এখন, আপনি যেভাবে ওজন কমাতে চান সেটি সম্পূর্ণরূপে আপনার ব্যাপার। কিন্তু আপনি এখন বুঝতে পেরেছেন যে, আপনার জন্য কোনটা বেষ্ট হবে। সুতরাং আপনি যেভাবে ওজন কমাতে চান সেইভাবে কাজ করা শুরু করে দিন ৷ আপনি কি ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত এবং খুব দ্রুত ওজন হ্রাস পেতে চান, নাকি আপনি সহজ উপায়ে এবং কিছুটা ধীর গতিতে ওজন হ্রাস পেতে চান সেটা আপনার উপর নির্ভর করবে।

See also  5 টি সহজ মাধ্যমে ত্বক উজ্জ্বল রাখার উপায় 2023

চেনি বা মিষ্টি জাতীয় খাবার না খাওয়া

প্রথম দিকের আমরা চিনির কথা বলছি, আরও নির্দিষ্টভাবে বলতে গেলে আমরা মিষ্টান্নের কথা বলছি। আপনি যদি আপনার ওজন কমানোর যাত্রা শুরু করতে চান তবে চিনি বা মিষ্টি এড়িয়ে চলুন। কিন্তু কেন ? কারণ হল, একটি মিষ্টি হল আসক্তি সৃষ্টিকারী পদার্থ। প্রথমত, এটি আপনার মস্তিষ্কে একটি প্রতিক্রিয়া তৈরি করে থাকে। দ্বিতীয়ত, এতে মেটার মতো নোংরা কার্বোহাইড্রেট রয়েছে, যা আবার আপনার শরীরের অনেক জন্য ক্ষতিকর। এবং তৃতীয় কারণ হল, যে কোনও মিষ্টিতে প্রচুর পরিমাণ চর্বি থাকে। মনে রাখবেন, রান্নার জগতে একটি প্রবাদ আছে যেটি হল চর্বি হল একটি স্বাদ। তাই আপনি যখন মিষ্টিতে মাখন যোগ করেন, সেটি আরোও সুস্বাদু করে তোলে। যা মানুষ উপভোগ করে থাকে।

আমাদের শেষ কথা-

আশা করি আমরা আপনাদের ওজন কমানোর উপায় সর্ম্পকে বুঝাতে সক্ষম হয়েছি। আজকের আর্টিকেল টি যদি আপনাদের ভাল লেগে থাকে, তাহলে অব্যশই একটি কমেন্ট করে যাবেন। এবং ওজন কমানোর উপায় সর্ম্পকে যদি আরো ও জানতে হলে আমাদের ফলো করতে পারেন। ধন্যবাদ

Scroll to Top